নতুন গ্রেডিং পদ্ধতিতে সকল পরীক্ষায় নম্বরের ভিত্তিতে সর্বোচ্চ মান নির্ধারণ হয়েছে জিপিএ-৪। বিস্তারিত….

এমপিও

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্রমতে, চলতি ২০২০ শিক্ষাবর্ষে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা থেকে নতুন গ্রেডিং পদ্ধতি কার্যকর করা হবে। ২০২১ সাল থেকে এসএসসি-সমমান ও এইচএসসি-সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৪ কার্যকর করা হবে।

Document 22_1আন্তর্জাতিক অঙ্গনের সঙ্গে মিলিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফলে ৫ পয়েন্টের গ্রেডিং পদ্ধতির বদলে ৪ পয়েন্ট চালু করার কথা সরকার ভাবছে বলে বেশ কয়েকবার জানিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফলাফলের সর্বোচ্চ মান জিপিএ ৪ চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকে কার্যকর হবে আভাস দিয়েছিলেন তিনি।

২০১৯ সালের ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে গ্রেড পরিবর্তন-সংক্রান্ত একটি সভার আয়োজন করেছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ওই সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিজিপিএ-৪ এর সঙ্গে সমন্বয় করে নিচের স্তরের সব পাবলিক পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএ-৪ করার পক্ষেই মত আসে।

ওই সভায় নতুন গ্রেডিং পদ্ধতিতে জিপিএ-৫ এর স্থানে জিপিএ-৪ নির্ধারণের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয়। তবে এ ক্ষেত্রে পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের কাঠিন্যের স্তর, মার্কিংয়ের গুণগত মান ইত্যাদি পরিবর্তন হচ্ছে না। আগের পদ্ধতিতে খাতা মূল্যায়ন ও নম্বর বণ্টন করা হবে।

নতুন গ্রেডিং পদ্ধতিতে জেএসসি-জেডিসি, এসএসসি-সমমান, এইচএসসি-সমমান পরীক্ষায় নম্বরের ভিত্তিতে সর্বোচ্চ মান নির্ধারণ হয়েছে জিপিএ-৪। এ ক্ষেত্রে ৯০-১০০ পর্যন্ত এ প্লাস জিপিএ-৪, ৮০-৮৯ পর্যন্ত ‘এ’ জিপিএ-৩.৫, ৭০-৭৯ ‘বি’ প্লাস জিপিএ-৩, ৬০-৬৯ ‘বি’ জিপিএ-২ দশমিক ৫, ৫০-৫৯ ‘সি’ প্লাস জিপিএ-২, ৪০-৪৯ ‘সি’ জিপিএ-১ দশমিক ৫, ৩৩-৩৯ ‘ডি’ জিপিএ-১ এবং শূন্য থেকে ৩২ ‘এফ’ গ্রেড জিপিএ-০ বা ফেল নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০০১ সালে পাবলিক পরীক্ষার ফলাফলে সনাতন পদ্ধতিতে নম্বর দেয়ার পরিবর্তে গ্রেড পদ্ধতি চালু করা হয়। ২০০৩ সালে সর্বোচ্চ ৫ সূচকের ভিত্তিতে ফল প্রকাশ করা হয়।

খুব সস্তা এখনি কিনুন
Read more and more  ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ছাড়া জাতীয়করণ আদায় করা সম্ভব নয়।

Get involved!

Comments

No comments yet