সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, শিক্ষার্থীদের ঘরে থাকতে হবে

স্বাস্থ্য খবর

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলসহ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রিসভা। ১৭ মার্চ থেকে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। আজ ১৬ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে  এ সিদ্ধান্ত হয়। একাধিক সূত্র দৈনিক শিক্ষাডটকমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।  

পরে দুপুরে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এক ব্রিফিংয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সাংবাদিকদের বিষয়টি জানান। তিনি বলেন, প্রাক-প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা এবং কোচিং সেন্টারগুলোও ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। শিক্ষার্থীদের ঘরে থাকতে হবে। 

মন্ত্রী বলেন, স্কুল-কলেজ বন্ধ মানে পড়াশোনা বন্ধ নয়, বাইরে ঘোরাঘুরি নয়। তিনি শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ বাড়ীতে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। 

এদিকে পরিস্থিতি মোকাবেলায় শিক্ষার্থীদের গ্রীষ্মকালীন ছুটি এগিয়ে নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত ঘোষণা করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। 

১৮ মার্চ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস–পরীক্ষা সাময়িক স্থগিত করা হয়েছে। ৩৬ জন শিক্ষকের অভিমতের প্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এর আগে রোববার (১৫ মার্চ) দুপুরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে শুধু পরামর্শ দিয়েছে। 

গতকাল রোববার বিকেলে শিক্ষামন্ত্রী ডা: দীপু মনি বলেছিলেন, স্কুল-কলেজ বন্ধের মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি। কেবল স্থানীয় পর্যায়ে করোনা ছড়িয়ে পড়লেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের কথা ভাববে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। রোববার (১৫ মার্চ) রাজধানীর ভাসানী স্টেডিয়ামে জাতীয় স্কুল হকি প্রতিযোগীতার উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “যদি কখনো এমন অবস্থা দেখা যায় স্থানীয় পর্যায়ে সংক্রমণ ছড়িয়ে যাচ্ছে তখন আমরা প্রয়োজন বোধে স্কুল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিবো। এখন পর্যন্ত স্কুল বন্ধ করার মতো কোনও ঘটনা ঘটেনি। প্রয়োজন হলে অবশ্যই আমরা স্কুল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেবো। ”

এদিকে গতকাল রোববার সকালেই দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের প্রেক্ষাপটে সব স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ চেয়ে হাইকোর্ট রিট করা হয়েছে। এ রিটে দেশের স্থল-নৌ এবং বিমানবন্দরও বন্ধ করে দেয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। 

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই স্কুল-কলেজসহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের দাবি উঠেছিল। সোমবার (১৬ মার্চ) দুপুরে আইইডিসিআরের পক্ষ থেকে জানানো হয়, অদ্যাবধি বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগীর সংখ্যা ৮ জন। প্রথমে যে তিনজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন, তাঁদের সবাই এখন করোনামুক্ত।

দেশে করোনার রোগী শনাক্তের পর বিভিন্ন মহল থেকে দাবি উঠে স্কুল-কলেজ বন্ধের। 

Get involved!

Well Come Our Social Platform

join and share our community.

Comments

No comments yet